স্কুলের লোগোতে ভারতের জাতীয় ফুল পদ্ম চলবে না: তৃণমূল

Reading Time: 2 minutes

বাংলায় একটা প্রবাদ আছে, ‘ঘরপোড়া গরু সিঁদুরে মেঘ দেখলেও ভয় পায়,’ ঠিক সেই রকমই পদ্মফুল দেখেই ভয় পায় ।

ABP খবরে দেখলাম একটি বিদ্যালয়ের লোগোতে পদ্ম ফুলের চিহ্ন আছে। তা দেখে একটি রাজনৈতিক দল তৃণমূল কংগ্রেস মনে খুব উঠেছে যে স্কুলের লোগোতে পদ্ম ফুল চিহ্ন হটাও।

আসলে ঘটনাটি হয়েছে শিলিগুড়ি বয়েজ প্রাইমারি স্কুলের পোশাকের পদ্মফুলের লোগো কে ঘিরে। ১৯১৮ সালে স্থাপিত শিলিগুড়ি বয়েজ স্কুলের লোগো অনেক আগের থেকেই ছিল কিন্তু হঠাৎ এই বিতর্ক কেন? তৃণমূলের বক্তব্য ওখানে (মানে লোগোতে) রাজনৈতিক অভিসন্ধি রয়েছে । আসলে যদি দেখি যে পদ্ম ফুল যেমন ভারতের জাতীয় ফুল তেমনি ঠিক তেমনি বিজেপির রাজনৈতিক প্রতীক চিহ্ন আর এখানেই হয় বিতর্ক।

যদি সামান্য স্কুলের লোগো অর্থাৎ ভারতের জাতীয় ফুল পদ্ম ফুল কে ঘিরে রাজনৈতিক অভিসন্ধি মনে হয় তাহলে এই না হয় ভবিষ্যতে গো না ধরে বসল যে সকল শতাব্দীপ্রাচীন কিংবা নব স্কুল কলেজ থেকে পদ্ম ফুল চিহ্ন সরাতে হবে। কারণ সেটি নাকি বিজেপির রাজনীতিক চিহ্ন । তারপর ক্রমে চলতে থাকবে যে মা সরস্বতীর পদ্ম ফুল উপরে বসে পুজো দেওয়া চলবে না কারণ সেটিও  নাকি বিজেপির রাজনীতিক চিহ্ন । তারপর পদ্ম ফুল দিয়ে মা দুর্গাকে পুজো করা চলবে না। পদ্ম ফুল চাষ বন্ধ করতে হবে। বাংলার প্রথিতযশা পটচ্চিত্র শিল্পীদের ফরমান জারি করা হবে পদ্ম ফুল আঁকা চিত্র করা যাবে না। বিভিন্ন দেবদেবীর হাতে পদ্ম ফুল থাকা চলবে না কারণ তৃণমূলের ফরমান তাহাদের বিরোধী রাজনৈতিক দল  বিজেপির রাজনীতিক চিহ্ন ।

রাজনৈতিক দাদা-দিদিরা অনুরোধ আপনাদের যে সামান্য পদ্মফুল নিয়ে এত ভয় কিসের পদ্মফুল আমাদের জাতীয় ফুল আমাদের কুল দেবতা আমাদের ঠাকুরের ফুল। তাকে নিয়ে এতো টানাটানি। আশ্চর্য !
এদিকে সোশ্যাল মিডিয়াতে বিষয়টিকে নিয়ে  ট্রোল রইল হয়েছে । নিচে কয়েকটি ট্রোলের ছবি দিলাম।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Translate »
error

Enjoy this blog? Please spread the word :)