শ্যামাপ্রসাদ মুখার্জির আত্মজীবনী এবং মৃত্যুর পর কলকাতা স্তব্ধ শোকে উত্তাল হয়েছিল

Spread the love( Please Share)

Reading Time: 5 minutes
shyama prasad mukherjee kolkata

শ্যামাপ্রসাদ মুখার্জির মৃত্যু

ডাক্তার শ্যামাপ্রসাদ মুখার্জির জীবনী

shyama prasad mukherjee jiboni bangla ডাক্তার শ্যামাপ্রসাদ মুখার্জির জীবন কাহিনী নিয়ে এর আগেও অনেক গুলো ব্লগ লিখেছি ।  আমি তাছাড়া শ্যামাপ্রসাদ মুখার্জির মৃত্যু রহস্য সম্পর্কে আরো লেখা আছে। আজকে ব্লগ লিপিবদ্ধ করছি শ্যামাপ্রসাদ মুখার্জির মৃত্যুর পরে কলকাতার দিন গুলো কেমন ছিলো ।

আনন্দবাজার পত্রিকা শ্যামাপ্রসাদ মুখার্জির মৃত্যু নিয়ে লিখেছিলেন

আনন্দবাজার পত্রিকা ২৮-৬-১৯৫৩-

“বিদোহী বাংলার ঐতিহ্যবাহক ডাক্তার শ্যামাপ্রসাদ মুখার্জির কাশ্মীরে নির্বাসনকালে মৃত্যু হইয়াছে এই সংবাদ কেবল ডাক্তার শ্যামাপ্রসাদ মুখার্জির পরিবারের একটি সুন্দর প্রভাতকে ভাঙ্গিয়া দিয়াছে তাহা নহে, কলিকাতার অধিবাসীগণকেও  ইহা অসহ্য আঘাতে বিহ্বল করিয়া দিয়াছে।

ডাক্তার শ্যামাপ্রসাদ মুখার্জির অগ্রজ বিচারপতি রামাপ্রসাদ মুখোপাধ্যায় মঙ্গলবার অতি প্রতুষে  সর্বপ্রথম এই দুঃসংবাদ শ্রবণ করেন। কাশ্মীর হইতে কোন এক সরকারী মুখপাত্র টেলিফোন যোগে জানান যে ডাক্তার শ্যামাপ্রসাদ মুখার্জি পরলোক গমন করিয়াছেন। … ডাক্তার শ্যামাপ্রসাদ মুখার্জি সোমবার শেষ রাত্রে ৩-৪০ মিনিটে মারা যান। কলিকাতায় সম্ভবত ডাক্তার শ্যামাপ্রসাদ মুখার্জির পরিবারই প্রথম সংবাদ পান। সকাল সাড়ে সাতটায় অল ইন্ডিয়া রেডিওর বাঙলা সংবাদে ইহার কোন উল্লেখ হয় নাই।

সকাল দশ ঘটিকার মধ্যে ডাক্তার শ্যামাপ্রসাদ মুখার্জির বাসভবনের সামনে এক বিরাট জনতা সমবেত হয় । ভবনের প্রবেশ পথের সন্মুখে শ্রীনগরে ডাক্তার শ্যামাপ্রসাদ মুখার্জির মৃত্যু এবং তাহাঁর মৃতদেহ বিমানযোগে কলিকাতা আনা হইতেছে এই সংবাদ টাঙ্গাইয়া দেওয়া হইয়াছিল।

ইহার পর সংবাদপত্রগুলির বিশেষ প্রভাতী সষ্করণ মাফরত কলিকাতার সমস্ত জনসাধারণ এই নিদারুণ সংবাদ জানিতে পারে। সঙ্গে সঙ্গে কলিকাতার সকল কাজ যেন স্তব্ধ হইয়া যায়। কাহাকেও বলিতে হয় নাই। যাহারা সারাদিনের প্রত্যাশায় সবে বিপ্নি সাজাইয়াছিল, তাহারা উহা বন্ধ করিয়া দেয় এবং যাহারা বিপনি খুলিতে যাইতেছিল, তাহারা উহা অবরুদ্ধ রাখিয়া ডাক্তার শ্যামাপ্রসাদ মুখার্জির বাসভবনের দিকে যাত্রা করে। দেখিতে দেখিতে সকল দোকানপাট, বাজার বন্ধ হইয়া যায়। বাস ট্রেন কিছুকাল চলিয়া গতিরুদ্ধ হয়।  পায়ে হাঁটিয়া দলে দলে অগণিত অসংখ্য লোক ডাক্তার শ্যামাপ্রসাদ মুখার্জির বাসভবনের সন্মুখে সমবেত হইতে থাকে। তাহাদের প্রিয়তম নেতা বাঙলার দুলাল কাশ্মীরে নির্বাসনকালে আকস্মাত মারা গিয়াছেন, তিনি এই বাসভবনে জাগ্রত জীবনে আর ফিরিয়া আসিবেন না ইহা জানিয়াও শোকে, আন্তরিক উৎকণ্ঠায় লোক এখানে আসিতে লাগিল। যাহারা পারিল উপরে উঠিয়া আসিল। যাহাদের পক্ষে তাহা দুঃসাধ্য হইল তাহারা দূরে দাঁড়াইয়া এই ভবনের দিকে তাকাইয়া রহিল। এই বিরাট জনতার ধনী, দরিদ্র, বৃদ্ধ, তরুণ, কিশোর মিশিয়া গিয়াছে। কলিকাতার বিশিষ্ট ব্যক্তি ও অভিজাতবর্গের মধ্যে কে যে আসেন নাই তাহা বলা কঠিন। অতি সাধারণ অখ্যাতনামা ব্যক্তিরাও কেহ বাদ পড়িয়াছেন কিনা বিপুল জনতার দিকে চাহিয়া তাহাও বলা দুষ্কর। বিপুল জলোচ্ছ্বাসের মতো রাস্তার দুইপ্রান্তে জনপ্রবাহ আছে বটে, কিন্তু গৃহ সন্মুখে জনসমাবেশ – গভিরতা হ্রাস পাইবার লক্ষণ নাই।

অফিস আদালত সবকিছু বন্ধ হইয়া যায়। প্রমোদ অনুষ্ঠান ভবনগুলি দ্বার সারাদিনের জন্য রুদ্ধ হয়। সারা কলিকাতা এক গভীর শোকচ্ছায়ায় নিমজ্জিত হয়। এইদিন আকাশে একবার রদ ফুটিয়া উঠে নাই। সুর্য সারাদিন মেঘাচ্ছন্ন ছিল। প্রকৃতি কাঁদিয়াছে।

ডাক্তার শ্যামাপ্রসাদ মুখার্জির বাসভবনে অনেক বয়স্ক বিশিষ্ট ব্যক্তি উচ্চস্বরে কাঁদিয়াছেন, অপরচিত ব্যক্তির চোখে অবিরাম অশ্রু। কেমন করিয়া জনসাধারণের চিত্তে ডাঃ শ্যামাপ্রসাদ মুখার্জি এমন দৃঢ়ভাবে আসন প্রতিষ্ঠা করিয়াছেন”।

শ্যামাপ্রসাদ মুখার্জির এবং সাভারকার

শ্যামাপ্রসাদ মুখার্জির এবং সাভারকার

শ্যামাপ্রসাদ মুখোপাধ্যায় leaves from a diary

শ্যামাপ্রসাদ+মুখোপাধ্যায়+leaves+from+a+diary – ডাঃ শ্যামাপ্রসাদ মুখার্জি চিরকাল চেয়েছিলেন মত্যু হোক বীরের মতন। ভারতমায়ের সেবা করতে করতে যাতে তাহাঁর মৃত্যুবরণ হয়। ডাঃ শ্যামাপ্রসাদ মুখার্জি নিজের ডাইরিতে লিখেছিলেন, “ কিন্তু তিলে তিলে বা ভুগে ভুগে মরতে চাই না, কাজ করতে করতে সংরামের ভিতর যেতে যেতে, সত্যকে বরণ করতে করতে জীবন দীপ নিবেযাক, এই আমার কাম্য”। আজ এই সিংহ পুরুষের মৃত্যু হয়েছে বীরের মতন। তিনি হয়তো জানতেন কাশ্মীরে গেলে হইতো তিনি ফিরে আসতে পারবেন না। তাও তিনি গেছিলেন ভারত মায়ের সন্মার রক্ষার্তে ‘এক দেশ দো প্রধান দো বিধান নেহি চলেগা’ শ্লোগান দিয়ে এগিয়ে ছিলেন।

সেই দিন অর্থাৎ ২৩ সে জুন ডাঃ শ্যামাপ্রসাদ মুখার্জির দেহ কলকাতাতে আনা হবে, সেই দিন বিমান বন্দরের হাজার হাজার জনতার সমাবেশ চোখে পরার মতন ছিলো। শেষবারের মতন এই পশ্চিমবঙ্গের জনক রক্ষাকর্তাকে  বিদায় জানাবে। সেইদিন ভবানীপুর থেকে বিমান বন্দর পর্যন্ত রাস্তা ছিল জনতার দখলে। যোশররোড , ভিয়াইপি রোড ধরে কাতারে কাতারে জনতা যাছিলেন চোখের জলে তাদের প্রিয় নেতাকে ডাঃ শ্যামাপ্রসাদ মুখার্জির অন্তিম যাত্রায় সামিল হতে।

বেলা তিনটের থেকে জনস্রোত বিমান বন্দর অভিমুখে চলেছে । কিন্তু বিমান কখন আসবে কেও জানে না। শুধু সংবাদপত্রে পড়েছে ডাঃ শ্যামাপ্রসাদ মুখার্জির দেহ বিমানযোগে আনা হবে তিনটে নাগাত। ভাবতে পারেন সেই সময় বাস ট্রাম সব বন্ধ হয়ে গেছিল। তবুও অসংখ্য নরনারী বৃদ্ধ , বাংঙ্গালী অবাংগালী হেঁটে হেঁটে বিমান বন্দরের দিকে যাচ্ছিল। বিভিন্ন নেতা নেত্রিরা পুস্প স্তবক নিয়ে বেলা থেকে সেখানে হাজির। ঠিক কিছুখন পর একটি বিমান অবতরণ করে জনতা ভাবেন যে ডাঃ শ্যামাপ্রসাদ মুখার্জির মৃতদেহ আসিয়াছে। কিন্তু পরে জানতে পারে না এই বিমানে কোন আসেনি। জনতা এদিকে উপস্থিত সংবাদিকদের একটু একটু পরে প্রশ্ন করতে থাকে। তাহাদের নেতা ভারত কেশরী ডাঃ শ্যামাপ্রসাদ মুখার্জির দেহ কখন আসবে। কিন্তু বিমান আর আসে না। ধিরে ধিরে বিকাল চারটা , পাঁচটা, ছয়টা হয়ে রাত নটায় আই এন এ বিমান নামে কলকাতা বিমান বন্দরে । তখন ভিড় কোন কমেনি।  বাঙলার বাঘ আশুতোষ মুখোপাধ্যায়ের সুপুত্র ভারত কেশরী ডাঃ শ্যামাপ্রসাদ মুখোপাধ্যায়ের দেহ কলকাতার মাটি স্পর্শ করলো। তখন শ্যামাপ্রসাদ মুখোপাধ্যায়ের পরিবারের পক্ষ থেকে বিভিন্ন নিয়মকানুন পালন করে পুস্পাঞ্জলি দিয়ে কলকাতা বিমান বন্দর থেকে এক বিরাট শোভাযাত্রা বের হয়। এই রাত্রে তখন রাস্তায় অগণিত মানুষ শ্যামাপ্রসাদ মুখোপাধ্যায়কে শেষ বারের মতন দেখার জন্য অপেক্ষা করছিল। আবালবৃদ্ধবিনিতা লক্ষ লক্ষ মানুষ এই রাত্রে উপস্থিত ছিল। প্রায় চার থেকে পাঁচ ঘণ্টা লেগেছিল ভবানীপুর পৌছাতে। সত্যই তিনি ‘বাপ কা বেটা’ । এমন সন্মান আজ পর্যন্ত শ্যামাপ্রসাদ মুখোপাধ্যায়ের পর কোন বাংঙ্গালী পেয়েছে কি জানা নেই ।

শ্যামাপ্রসাদ মুখার্জির মৃত্যু রহস্য

শ্যামাপ্রসাদ মুখোপাধ্যায়ের মৃত্যু কোন স্বভাবিক মৃত্যু ছিলনা যদি তৎকালীন সরকার মরিয়া হয়ে চেষ্টা করেছিলেন স্বভাবিক দেখানোর জন্য, কিন্তু এই লক্ষ লক্ষ জনগণের মন মেনে নেই নি।  শ্যামাপ্রসাদ মুখোপাধ্যায়ের মা  যোগমায়া দেবী পুত্র শোকে বলেছিলেন ডাঃ বিধান চন্দ্র রায় থাকতে কি ভাবে আমার ছেলে বিনা চিকিৎসায় মারা গেলো। ডঃ বিধানচন্দ্র রায়কে  শ্যামাপ্রসাদ মুখোপাধ্যায়ের মা নিজের ছেলের মতন দেখতেন। শ্যামাপ্রসাদ মুখার্জির মৃত্যু রহস্য থেকে গেলো বিচার হলনা

শ্যামাপ্রসাদ মুখার্জির মৃত্যু  নিয়ে আনন্দ বাজার পত্রিকা আরো লিখেছিল-

আজ শোকে মুহ্যমান হইয়া বাংলার দুর্ভাগ্য ও বাঙালী জাতি সমাজের দুর্ভাগ্য  সমস্ত মন দিয়া অনুভব করিয়াছি। সদ্য অতীত ইতিহাস সেই পটভুমিকায় যেন সেই দুর্ভাগ্যের চিত্ত অন্তদৃষ্টির সন্মুখে প্রকট করিয়া দিয়াছে। হায় অভিশপ্ত ভুমি ! … আজ ডঃ শ্যামাপ্রসাদ মুখোপাধ্যায়ের জীবনে তো সেই সময় পরিণতি ঘটলো।  বাঙালী সমাজের নেতৃস্থানীয় ব্যক্তিদের মধ্যে জিবনের পরিপূর্ণতার পুর্বেই এই প্রচণ্ড মৃত্যু স্রোতের আঘাত, ইহা কিভাবে অবরুদ্ধ হইবে অথবা কোন কালে অবরুদ্ধ হইবে কি না তাহা বুঝিয়া পাইতিছিনা। (আনন্দ বাজার পত্রিকার সম্পাদকীয় )

শেষ কথা কৃতজ্ঞতা স্বীকার

এই তথ্য সহায়তা – অ্যাডভোকেড শান্তুনু সিংহের লেখা শ্যামাপ্রসাদ – ব্যর্থবলিদান এবং বিভিন্ন পত্র পত্রিকা। আপনার মতামত নিচের কমেন্ট বক্সে অবশ্যই জানান।

নিচের লিঙ্কে কিল্ক করলে আপনি শ্যামাপ্রসাদ মুখার্জিকে নিয়ে বা আরো অনেক বাংলা নিবন্ধ লেখা পড়তে পারবেন ।

পশ্চিমবঙ্গের শিক্ষা ক্ষেত্রে শ্যামাপ্রসাদ মুখ্যার্জীর ভূমিকা

শ্যামাপ্রসাদের ব্যর্থ বলিদান বইটি পড়ে শ্যামাপ্রসাদ মুখার্জী কে জানুন

বাংলা বিভাজনের সত্যিকারের ইতিহাস নিয়ে শ্যামাপ্রসাদ মুখার্জির সিনেমা

শ্যামাপ্রসাদ মুখার্জির মৃত্যু রহস্য থেকে গেলো বিচার হলোনা

বীরবাঙালি ডাঃ শ্যামাপ্রসাদ মুখার্জীর “এক দেশ, এক বিধান” স্বপ্ন সফল হলো।

ইতিহাসের অন্তরালে ভারতকেশরী শ্যামাপ্রসাদ মুখার্জীর অবদান

শ্যামাপ্রসাদ মুখার্জির মৃত্যুর পর সেদিনের কলকাতা স্তব্ধ শোকে উত্তাল হয়েছিল

শ্যামাপ্রসাদ মুখার্জি

বাংলা নিবন্ধ

বাংলা মনিষীর কথা

একটি অনুরোধ পাঠকের প্রতি

ভালোলাগলে শেয়ার করতে ভুলবেন না। আমার ইউটুব চ্যানাল এবং  বাংলা অডিও বুক বা বাংলা পডকাস্ট সাবস্কাইব করুণ যাতে করে আপনি পড়ার সাথে শুনতে ও দেখতেও পারবেন। নিচে লিঙ্ক দিলাম ।

( All Subscription is Free)

For YouTube Subscribe – CLICK HERE

For Audio Book  Subscribe ( Please Click Following Logo or Name)

Bangla PODCAST

Google Audio Book –  Coming Soon

JIO Savan – Coming Soon

Bangla Audio Book – Coming Soon

বিঃ- আমার এই লেখাতে বিভিন্ন স্থানে আমি অ্যামাজনের লিঙ্ক দিয়েছি । আপনার যদি কিছু কিনতে হয় তা হলে উক্ত লিঙ্ক ব্যবহার করে কিনলে আমাকে অ্যামাজনের তরফ থেকে সহযোগ রাশি প্রদান করবে। এতে আপনার কোন চার্জ লাগবেনা।

Shopping Supporter AMAZON INDIA

ইচ্ছা করলে আপনিও আমাকে সহযোগ করতে পারেন সোজাসুজি, নিচের লিঙ্কে কিল্ক করে যেকোনে মোডে পেমেন্ট করতে পারেন ।

DONATION OR PAYMENT SUPORTER  ROZAR PAY INDIA and PAYPAL

 


Spread the love( Please Share)

No Responses

Leave a Reply