“এক দেশ, এক বিধান” বীরবাঙালি ডাঃ শ্যামাপ্রসাদ মুখার্জীর স্বপ্ন সফল হলো।

Spread the love( Please Share)

Reading Time: 4 minutes

অন্যায়ের প্রতিবাদ করো, প্রতিরোধ করো , প্রয়োজনে নাও প্রতিশোধ। “

শ্যামাপ্রসাদ মুখার্জী

শ্যামাপ্রসাদ মুখার্জী

Understanding article 370 & Shyamaprashad Mukherjee.
 
বাংলার বাঘ স্যার আশুতোষ মুখার্জীর সুযোগ্য সন্তান ছিলেন ভারতকেশরী ডাঃ শ্যামাপ্রসাদ মুখার্জী। সত্যি বাংলার বাঘ স্যার আশুতোষ মুখার্জীর সুযোগ্য সন্তান বীর বাঙালি ভারত কেশরী ডাঃ মুখার্জীর স্বপ্ন আজ পূর্ণ হলো
। ঐতিহাসিক সিদ্ধান্ত নিলেন নরেন্দ্র মোদির সরকার, আজ ৫/৮/১৯ তারিখে লোকসভা আর রাজ্যসভায় সংবিধানের অনুচ্ছেদ 370 এবং 35A বাতিল করার প্রস্তাব পাশ হলো। অর্থাৎ জম্মু আর কাশ্মীরে আর আলাদা পতাকা উড়বে না, পৃথক নেতা থাকবে না। স্বশাসিত রাজ্য থেকে কেন্দ্রশাসিত রাজ্যে পরিণত হলো জম্মু আর কাশ্মীর। ড: শ্যামাপ্রসাদ মুখার্জীর স্বপ্ন “এক দেশ, এক বিধান” আজ সফল হলো।
 
 

কি ঘটেছিল সেইদিন যার জন্য বাঙালি আজ গর্বিত :-

ডাঃ মুখার্জীর ১৯৫২ সনে দক্ষিণ কলকাতা কেন্দ্রর থেকে সংসদে নির্বাচিত হন। তিনি ছিলেন ভারতের জাতীয়তাবাদী আখন্ডতার প্রতীক, তাই তিনি কাশ্মীরের ৩৭০ ধারা সম্পর্কে বলেছিলেন “”Ek desh mein do Vidhan, do Pradhan aur Do Nishan nahi challenge” । ১৯৫৩ এর ৯ মে শ্রদ্ধেয় শ্যামাপ্রসাদ মুখার্জী পাঞ্জাবের আম্বালার মাঠে এক বিরাট জনসভায় পন্ডিত জহরলাল নেহেরুর কাশ্মীর নীতিকে তুলোধোনা করলেন। যদি কাশ্মীর ভারতের অবিচ্ছেদ্য অঙ্গ হয়ে থাকে, তাহলে কাশ্মীরের কেন আলাদা সংবিধান, আলাদা নিশান, আলাদা উজিরি আজম (প্রধানমন্ত্রী ), আলাদা সুর্প্রিমকোর্ট হবে তার ব্যাখা চাইলেন নেহেরুর কাছে।
…ওই দিনই জলন্ধরের ১৫ কিমি দূরে তিনি ফাগোয়ারাতে আর একটি জনসভায় শেখ আবদুল্লার এটিটিউড নিয়ে প্রশ্ন তুললেন। তিনি বললেন, “শেখ আবদুল্লা আমাকে কাশ্মীরে প্রবেশ করতে নিষেধ করেছেন কিন্তু আমি বিনা পারমিটেই কাশ্মীরে ঢুকব।” পরের দিন তিনি পাঞ্জাবেই রইলেন কাশ্মীরের উদ্দেশ্যে রওনা হওয়ার জন্য ।
 
 
 

শ্যামাপ্রসাদ মুখার্জীর কাশ্মীর যাত্রা 

...১১মে ১৯৫৩ বিকাল ৪ টায় ডঃ মুখার্জির জিপ কাশ্মীর -পাঞ্জাব সীমান্তের দিকে রওনা হল। সঙ্গে ডঃ মুখার্জির প্রাইভেট সেক্রেটারি টেকচাঁদ ঠাকুর, জনসঙ্ঘ নেতা শ্রী গুরু দত্ত বৈদ এবং ডঃ মুখার্জির বিশেষ প্রতিনিধি অতি বিশ্বস্ত যুবক শ্রী অটল বিহারী বাজপেয়ী।...ঠিক বিকেল ৪.৪৫ মিনিটে মাধোপুর চেকপোস্ট পার হয়ে জম্মু সীমান্তের ভিতরে রাভী নদীর সেতু অর্ধেক পার হওয়ার পরেই সেতুর উপরে জম্মুর কাঠুয়া থানার পুলিশ অফিসার শ্যামাপ্রসাদ মুখার্জির কনভয় থামিয়ে দিলেন। এবং শ্যামাপ্রসাদ মুখার্জির হাতে একটা নির্দেশ নামা ধরিয়ে দিলেন যাতে লেখা আছে -ডঃ মুখার্জির জম্মু-কাশ্মীরে প্রবেশের কোনো অনুমতি নেই। কিন্তু ভারত থেকে কাশ্মীরে প্রবেশ করার আদেশ না থাকার অপরাধের জন্য তৎকালীন মুখ্যমন্ত্রী আব্দুলার নির্দেশে ডাঃ মুখার্জীকে ১১ মে ১৯৫৩ সনে গ্রেফতার করা হয় । নেহেরুর পরিকল্পনা অনুযায়ী কাশ্মীরে অসহনীয় পরিস্থিতিতে পড়ে রইলেন ভারত মাতার অন্যতম বীর সন্তান ডঃ শ্যামাপ্রসাদ মুখার্জি। তৎকালীন বাংলার মুখ্যমন্ত্রী ডঃ বিধান চন্দ্র রায়ও মৌন থেকে গেলেন। কিন্তু ১২ মে ১৯৫৩, হিন্দুমহাসভার প্রেসিডেন্ট নির্মল চন্দ্র চাট্যার্জি ( সিপিএম নেতা সোমনাথ চ্যাটার্জির পিতা) হিন্দু মহাসভার সেক্রেটারি ভি জি দেশপান্ডে, সংসদ সদস্য শ্রী নন্দলাল শর্মা , ডঃ প্রকাশ বীর শাস্ত্রী সংসদের দেওয়ান হলে ডঃ মুখার্জির গ্রেপ্তারের প্রতিবাদে জহরলাল নেহেরু আর শেখ আব্দুল্লার বিরুদ্ধে রাগে ক্ষোভে ফেটে পড়লেন। কারাগারে তাঁহার শারীরিক আসুস্থতার জন্য তাঁকে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয় । কিন্তু সেখানে তাঁহার বারন করা সত্যেও তাঁহার উপর ভুল ইঞ্জেক্সন দেওয়া হয়েছিলো। তাঁহার ফলে কিছু অজানা কারনে রহস্যময় পরিস্থিতিতে ডাঃ মুখার্জীর মৃত্যু ঘটেভুল চিকিৎসা বা বিনা চিকিৎসার কারনে ।  ডঃ মুখার্জির কোনও পোস্ট মর্টেম করা হয়নি বা মৃত্যুর কোনও তদন্ত হয়নি । যোগমায়া দেবী নিরপেক্ষ তদন্তের দাবি করলে নেহেরু তা প্রত্যাখান করেন । S.C DAS এর মতে , হাসপাতালের নার্স RAJDULARI TIKU শ্যামাপ্রসাদের মেয়ে সবিতাকে বলেছিলেন যে ডঃ মুখার্জি ডাক্তারের জন্য চিৎকার করলে সে DR JAGANNATH ZUTSHI কে ডেকে আনে । তিনি একটি বিষাক্ত পাওডার দিলে ডঃ মুখার্জি প্রচন্ড চিৎকার করতে শুরু করেন এবং কিছুক্ষণের মধ্যেই মারা যান। ২০০৪ সালে বাজপেয়ী দাবি করেন যে মুখার্জির গ্রেপ্তার ছিল ”নেহেরুর ষড়যন্ত্র।”

শ্যামাপ্রসাদ মুখার্জীর মৃত্যুর পর ষড়যন্ত্র হয়

…এমনকি তার মৃত্যুর পরও অনেক ষড়যন্ত্র হয়। কলকাতাতে তার মৃতদেহ যেদিন আনা হয় সেইদিন বামেরা বাংলা বন্ধ ডেকেছিল যাতে তার অন্তেষ্টিতে বেশী মানুষ যেতে না পারে। তথাপি হাজার হাজার লোক জমায়েত হয়েছিল তাদের প্রিয় নেতাকে শেষ বিদায় জানানোর জন্য ।
 
 
স্বাধীনতার এত বছরে এই মহাপুরুষকে কম অবহেলার স্বীকার হতে হয়নি। তথাপি তিনি ভারতের প্রতিটি মানুষের মনের মনিকোঠায় স্থান দখল করে আছেন। আজ ৫/৮/১৯ তারিখে লোকসভা আর রাজ্যসভায় সংবিধানের অনুচ্ছেদ 370 এবং 35A বাতিল করার প্রস্তাব পাশ হলো। অর্থাৎ জম্মু আর কাশ্মীরে আর আলাদা পতাকা উড়বে না, পৃথক নেতা থাকবে না। স্বশাসিত রাজ্য থেকে কেন্দ্রশাসিত রাজ্যে পরিণত হলো জম্মু আর কাশ্মীর। ড: শ্যামাপ্রসাদ মুখার্জীর স্বপ্ন “এক দেশ, এক নিধান” আজ সফল হলো।
 
 
 

বাঙালী কি শ্যামাপ্রসাদ মুখার্জীকে মনে রেখেছে 

 
এই মহান নেতাই পশ্চিমবঙ্গের সৃষ্ঠি কার। বাঙ্গালীদের আশ্রয়দাতা পশ্চিমবঙ্গের এই স্রষ্টা কে অনেকই চেনেন না , আর জানে তারা তারা এই সত্যকে অস্বীকার করে। তাই বলা বাহুল্য যে বাংঙ্গালী চিরকালে অকৃতজ্ঞ। কিন্তু আজ বাঙালিকে গর্ববোধ করা উচিৎ, আর ধন্যবাদ জ্ঞাপন করা উচিত এই নরেন্দ্র মোদি সরকার সরকারের প্রতি কারণ, আজ বাঙালি যাকে নিয়ে গর্ব বোধ করছে এই বাংলার বাঘ স্যার আশুতোষ মুখার্জীর সুযোগ্য সন্তান ডাক্তার শ্যামাপ্রসাদ মুখার্জির আত্ম বলিদান আজ সফল হলো নরেন্দ্র মোদি সরকারের জন্য। এখন বাঙালির পালা বাঙ্গালীদের আশ্রয়দাতা পশ্চিমবঙ্গের এই স্রষ্টা শ্যামাপ্রসাদ মুখার্জির কৃতজ্ঞতা স্বীকার করা।
আজও বাঙ্গালীর হৃদয় খুজে বেড়ায় ডাঃ শ্যামাপ্রসাদ মুখার্জীর মতো একজন মানুষ, তিনি বালিতেন
 
 
 

” অন্যায়ের প্রতিবাদ করো, প্রতিরোধ করো , প্রয়োজনে নাও প্রতিশোধ। “

নিচের লিঙ্কে কিল্ক করলে আপনি শ্যামাপ্রসাদ মুখার্জিকে নিয়ে বা আরো অনেক বাংলা নিবন্ধ লেখা পড়তে পারবেন ।

পশ্চিমবঙ্গের শিক্ষা ক্ষেত্রে শ্যামাপ্রসাদ মুখ্যার্জীর ভূমিকা

শ্যামাপ্রসাদের ব্যর্থ বলিদান বইটি পড়ে শ্যামাপ্রসাদ মুখার্জী কে জানুন

বাংলা বিভাজনের সত্যিকারের ইতিহাস নিয়ে শ্যামাপ্রসাদ মুখার্জির সিনেমা

শ্যামাপ্রসাদ মুখার্জির মৃত্যু রহস্য থেকে গেলো বিচার হলোনা

বীরবাঙালি ডাঃ শ্যামাপ্রসাদ মুখার্জীর “এক দেশ, এক বিধান” স্বপ্ন সফল হলো।

ইতিহাসের অন্তরালে ভারতকেশরী শ্যামাপ্রসাদ মুখার্জীর অবদান

শ্যামাপ্রসাদ মুখার্জির মৃত্যুর পর সেদিনের কলকাতা স্তব্ধ শোকে উত্তাল হয়েছিল

শ্যামাপ্রসাদ মুখার্জি

বাংলা নিবন্ধ

বাংলা মনিষীর কথা

ভারতভাগে শ্যামাপ্রসাদ মুখার্জীর ভূমিকা ভালো লাগলে সকলের সাথে শেয়ার করে সকলকে জানার সুযোগ করে দিন। এই ব্লগ সাইট টিতে আরো অনেক কিছু তথ্য এবং লেখা আছে পড়তে পারেন এবং ইমেইল সাবস্ক্রিপশন অপশন আছে যা একেবারে বিনামূল্যে আপনার ইমেইল এড্রেস দিয়ে সাবস্ক্রাইব করতে পারেন এবং আমার সাথে সরাসরি যোগাযোগ করতে ইমেল করুন-  abdutta21@gmail.com shyama prasad mukherjee in bengali


Spread the love( Please Share)

One Response

  1. sandip mandal June 18, 2020

Leave a Reply