RSS কি ? কেন ? উদ্দেশ্য জানতে পড়ুন The RSS road maps for the 21st century

The RSS: Roadmaps for the 21st Century RSS কি ? কেন ? উদ্দেশ্য জানতে পড়ুন

Table of Contents

The RSS: Roadmaps for the 21st Century
The RSS: Roadmaps for the 21st Century Book review 

RSS কি ? কেন ?

Sunil Ambekar ABVP National OGS
Writer -Sunil Ambekar ABVP National OGS

তিন দশক থেকে রাষ্ট্রীয় স্বয়ংসেবক সংঘের প্রচারক এবং বর্তমান অখিল ভারতীয় বিদ্যার্থী পরিষদ ( ABVP) র রাষ্ট্রীয় সংগঠন সম্পাদক সুনীল আম্বেকারজি একটি বই লিখেছেন। যাহার আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেছেন সরসঙ্ঘচালক মোহন ভাগবত। দি আরএসএস রোড ম্যাপ ফর টোয়েন্টি ফার্স্ট সেঞ্চুরি বইটিতে সংঘের অতীত এবং বর্তমানের কাজকর্ম এবং একুশ সত্যিকারের ইয়ার এজেন্ডা কি হতে পারে তা নিয়ে আলোচনা করেছেন। যদি আপনাকে রাষ্ট্রীয় স্বয়ংসেবক সংঘের ইতিহাসকে বুঝতে হয় এবং সংঘ কি সম্পর্ক ভাবনাচিন্তা করে ,জানার আগ্রহী হন তাহলে আপানকে সুনিল আম্বেকার এর নতুন বই পড়তে অবশ্যই হবে। যেখানে আপনি অনেক নতুন ধরনের তথ্য পাবেন আরএসএস সম্পর্কে যেমন

বৌদ্ধ ধর্মে দীক্ষা নেওয়ার আগে ডঃ আম্বেদকর আরএসএসর স্বয়ং সেবক দের কি বলেছিলেন ?

RSS র প্রতিষ্ঠাতা ডঃ কেশব বলিরাম হেডগেওয়ার কংগ্রেসের কোন কোন আন্দোলন নিয়ে জেলে গিয়েছিলেন ?

সংঘের গণবেশ ইউনিফর্ম প্রথমবার কংগ্রেসের অধিবেশনে কেন পরা হয়েছিল?

সংঘের নিত্য প্রার্থনার সময় সমর্থ গুরু রামদাস এর জয় কেন বলা হয়?

সংঘের প্রতিষ্ঠার সময় রাষ্ট্রীয় স্বয়ংসেবক সংঘ ছাড়াও আরো দুটো নাম প্রস্তাব করা হয় ইহা কি কি ছিল?

নাগপুরের পরে সংঘের শাখা প্রথম কোথায় শুরু হয়েছিল?

মহাত্মা গান্ধী তিনবার সংঘের ক্যাম্পে এসে কোন কোন কথাতে প্রভাবিত হয়েছিলেন?

                     এই সমস্ত প্রশ্নের উত্তর আপনি পাবেন এই বইটির ভেতরে। লেখক সুনিল আম্বেকারের এই বই সত্যই সঙ্ঘের A  ( এজেন্ডা) B ( বিজেপি বা রাজনীতির সাথে সম্পর্ক ), C ( সাম্প্রদায়িক হওয়ার অভিযোগ) এবং D ( বহু সংঘ সম্পর্কিত নাজানা তথ্য) বলছে। উল্লেখনীয় এখানে সংঘ 94 বছর ধরে কাজ করছে আর 2025 সংঘ সংস্থাপনার 100 বছর পূর্তি হবে। এখানে মজার ব্যাপার যারা সংঘকে নিজের মন থেকে মেনে নিয়েছে। তাহাদের জন্য ABC কোন মানে হয়না কিন্তু তাহাদের জন্য D এর অনেক মানে থাকে যেখানে থাকবে অনেক ধরনের রোমাঞ্চকর সংঘ সম্পর্কিত তথ্য। এই বইটিতে হিন্দুরাষ্ট্র কেন এসম্পর্কিত ভুল ধারণা কি মুসলমান এবং খ্রিস্টানদের মধ্যে আরএসএসের রিলেশন কি? মহিলাদের সংঘে স্থান কি? সমকামী সম্পর্ক এবং উল্লাহ রিলেশনশিপ সম্পর্কে সংঘের মতামত কি? রাম মন্দির 370 ধারা ইউনিফর্ম সিভিল কোড সম্পর্কে বইটিতে আলোচনা করা হয়েছে।

                     বিজেপি বা যে কোনো রাজনৈতিক দলের  সঙ্গে সংঘের সম্পর্ক কি বা কোন কোন পরিস্থিতিতে বিজেপির দৃষ্টি কোন সম্পর্কে সংঘ রায় দেয় । এই বিষয়ে আলোচনা করা হয়েছে। নরেন্দ্র মোদির নিউ ইন্ডিয়া বলে কিন্তু সংঘ হিন্দুত্ব কেন বলে ? এই বিষয়ে বিষয় সম্পর্কেও স্পষ্টভাবে হিন্দুত্ব এবং নিউ ইন্ডিয়ার বিষয়টি বোঝানোর চেষ্টা করা হয়েছে বইটিতে।

উক্ত বইটি সুনিল আম্বেকার সংঘের বিভিন্ন প্রচারক বিভিন্ন ব্যক্তিত্বের মতামত তুলে ধরেছেন যেমন মনুস্মৃতি সম্পর্কে কথা বলতে গিয়ে তিনি ডক্টর কৃষ্ণ গোপাল জি একটি মতামতকে উল্লেখ করে বলেন-

“এখন একটি স্মৃতি চলবে আর ওটা হল কনস্টিটিউশন অফ ইন্ডিয়া” ।

সাম্প্রতিক নবভারত টাইমস কে ইন্টারভিউ দিতে গিয়ে সুনিল আম্বেকার বলেছেন-

আমার মনে হয়না সংঘের দৃষ্টিকোণ বদলেছে। সংঘ একটি বীজ ডাক্তার হেডগেওয়ার রেখেছিলেন।  বীজটি এখন বৃক্ষের স্বরূপ নিয়েছে, যাহার ফুল এবং ফল এখন দেখা দিচ্ছে। বইটিতে সংঘের প্রগতি সাথে আরও নতুন কিছু তথ্য মানুষের সামনে আসছে। সুনিল আম্বেকার আরো বলেছেন চীনাদের বহিষ্কার সংঘ লাগাতার করে এসেছে শেষ পাঁচ বছরেও করেছে।  সংঘ স্বদেশীর উপরে ধ্যান দিয়ে কাজ করে চলেছে। সুনিল আম্বেকার আরো বলেছেন রাষ্ট্রীয় স্বয়ংসেবক সংঘের সৃষ্টি যখন হয় তখন থেকেই চিন্তাধারা ছিল সংঘ সমাজ হবে। সংঘ সব সময় পেছন থেকে কাজ করেছে এবং সমাজকে এগিয়ে দিয়েছে। সংঘ দিনদিন যত বাড়বে ততোই সমাজের মধ্যে সমাহিত হয়ে যাবে। সংঘ সমাজের মধ্যে এই ভাবে মিশে যাবে যেমন দুধের সাথে চিনি মিলে যায়। সুনিল আম্বেকার আরো বলেছেন আমাদের ভারতের ইতিহাস এর লোকতান্ত্রিক হওয়া উচিত। আমাদের দেশ লোকতান্ত্রিক দেশ। এখানে অনেক লোকের প্রতিনিধিত্ব নেই। ভারতের স্বাধীনতায় শ্রেয় শুধু কিছু লোককে দেওয়া হয়েছে কিন্তু যাদের মধ্যে অনেক লোকের যোগদান ছিল তাদের কোনো উল্লেখ নেই। অনুসূচিত জাতি জনজাতি আর উত্তর-পূর্বে মানুষের যোগদান ছিল। ইহা একটি দীর্ঘকালীন যুদ্ধ এবং সমাজের প্রত্যেকটি প্রান্তের গ্রামের মানুষ এই যুদ্ধে যোগদান করেছিল কিন্তু তাহাদের উল্লেখ ইতিহাসে পাওয়া যায় না । তার জন্য ইতিহাসের পুনর্লিখন না বরং ইতিহাসের প্রতিনিধিত্বের দরকার আছে এই বিষয়। সংঘ ঘুচিয়ে দিয়ে কাজ করে না। সংঘ সমাজকে সাথে নিয়ে কাজ করে। সংঘের কোন পাবলিক এজেন্ডা নেই।

শেষে বলব যারা সংঘের বিপক্ষে বা পক্ষে আছে তা তাদেরকে এ বইটি অবশ্যই বইটি পড়া ( কিনতে নিচের লিঙ্কে কিল্ক করুন)  উচিত অনেক নতুন কিছু জানতে পারবে’ সঙ্গে ঘনিষ্ঠ বুঝার চেষ্টা করবেন। বর্তমান বইটি কেবল ইংরেজি ভাষায় আছে আগামীতে 217 পৃষ্ঠার বইটির সংস্করণ বাংলা ভাষা ছাড়াও বিভিন্ন ভারতীয় ভাষাতে করা হবে। আপনি বইটি নিচের লিংকে ক্লিক করে সোজাসুজিভাবে কিনতেও পারে এবং পড়ুন।

BUY Now

         BUY NOW           


ভালো লাগলে সকলের সাথে শেয়ার করে সকলকে জানার সুযোগ করে দিন। এই ব্লগ সাইট টিতে আরো অনেক কিছু তথ্য এবং লেখা আছে পড়তে পারেন এবং ইমেইল সাবস্ক্রিপশন অপশন আছে যা একেবারে বিনামূল্যে আপনার ইমেইল এড্রেস দিয়ে সাবস্ক্রাইব করতে পারেন এবং আমার সাথে সরাসরি যোগাযোগ করতে ইমেল করুন-  abdutta21@gmail.com

Leave a Comment