বাংলা ভাষার জন্য আমার বোনের রক্তে রাঙানো ‘অমর উনিশ’ ১৯মে আমি কি ভুলিতে পারি ?

19th may Silchar Bhasha Shahid Dibosh Assam

বাংলা ভাষার জন্য একমাত্র শহীদ বালিকা কমলা ভট্টাচার্য্য-

বরাক উপত্যকায়ও ২১ ফেব্রুয়ারি ‘আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস’ আনুষ্ঠানিকভাবে অত্যন্ত শ্রদ্ধার সাথে পালন করা হয়। কিন্তু দুঃখের বিষয় পশ্চিমবঙ্গের কোথাও উনিশে মে বাংলা ভাষা শহীদ দিবস পালন করা হয় না এবং এই রক্তাক্ত ইতিহাস আজও পশ্চিমবঙ্গে রহস্যজনকভাবে অনুচ্চারিত।
ষাটের দশকে আসামের বরাক উপত্যকা তথা শিলচরে বাংলা ভাষা রক্ষায় একটি রক্তক্ষয়ী আন্দোলন হয়। তাতে একদিনের ঘটনায় এগারোজনের প্রাণ যায়। প্রতিবেশী রাজ্যের সেই ঘটনার কথা আমরা অনেকেই হয়তো জানি না।এই ভাষা শহীদদের মাঝে রয়েছে ১৬ বছরের একজন কিশোরী, তার নাম কমলা ভট্টাচার্য। মাত্র আগেরদিন সে ম্যাট্রিক পরীক্ষা দিয়েছে। অনেক কষ্টে মা’কে রাজি করিয়ে কমলা বড় বোনের একটা শাড়ি পরে রেল স্টেশনের কাছে পিকেটিং করতে গিয়েছে। তার সাথে ছোটবোন, বড়বোন, পাড়াপড়শি অনেকেই আছে। যখন লাঠিচার্জ করা হচ্ছে তখন ছোটবোন নিচে পড়ে গিয়ে চিত্কার করছে, কমলা তাকে তোলার জন্যে যখন ছুটে যাচ্ছে, ঠিক তখন একটা বুলেট তাঁর মাথার ভেতর দিয়ে চলে যায়, বাংলা ভাষার জন্যে প্রাণ দেয় প্রথম একটি মহিলা— শুদ্ধ করে বলা উচিত প্রথম একটি বালিকা।১৯৬১ সালের ১৯ মে তারিখটি আসাম রাজ্যে ‘বাংলা ভাষা দিবস’ হিসেবেই পরিগণিত। একইভাবে শিলচর রেলওয়ে স্টেশনে শহিদের নামসম্বলিত একটি ভাষা সৌধ নির্মাণসহ সেটির নামকরণ করা হয় ‘ভাষা শহিদ স্টেশন’।

মোট এগারোজন এই আন্দোলনে শহিদ হয়েছেন

১৯মের ভাষা শহীদের নাম –
কমলা ভট্টাচার্য
হিতেশ বিশ্বাস
কানাইলাল নিয়োগী
শচীন্দ্র পাল
কুমুদ রঞ্জন দাস
সুনীল সরকার
সত্যেন্দ্র দেব
সুকোমল পুরকায়স্থ
বিরেন্দ্র সূত্রধর
তরণী দেবনাথ
চণ্ডীচরণ সূত্রধর

#InternationalMother #LanguageDay

Leave a Comment